ওমান ই ভিসা চেক করার উপায় অনলাইন

যদি আপনি আপনার দেশ থেকে ওমান যেতে চান। তাহলে আপনাকে অবশ্যই ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে। আর ভিসা আবেদন করার পর আপনি অনলাইনে ওমান ভিসা চেক করে নিতে পারবেন। তবে তার জন্য আপনাকে অনলাইন থেকে ওমান ভিসা চেক করার উপায় গুলো জানতে হবে। 

মূলত সে কারণে আজকে আমি আপনাকে ওমান ভিসা চেক করার উপায় গুলো দেখিয়ে দিবো। আর আপনি যদি সেই উপায় গুলো সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে নিচের আলোচিত আলোচনায় চোখ রাখুন।

ওমান ই ভিসা চেক করার উপায় অনলাইন

অনলাইন ওমান ই ভিসা চেক করার উপায় 

বর্তমান সময়ে আপনি কোনো ঝামেলা ছাড়াই ওমান ই ভিসা চেক করে নিতে পারবেন। তবে যখন আপনি অনলাইনে ই ভিসা চেক করবেন। তখন আপনার নিকট বেশ কিছু তথ্য থাকতে হবে। যেমন, 

  1. Web Application Number
  2. Travel Document Number
  3. Passport Number
  4. Document’s Nationality

আর যখন আপনার নিকট উপরোক্ত তথ্য গুলো থাকবে। তখন আপনি ০১ টি ওয়েবসাইট থেকে ওমান ই ভিসা চেক করে নিতে পারবেন। তবে তার জন্য আপনাকে কি কি নিয়ম ফলো করতে হবে। এবার আমি আপনাকে সেই নিয়ম গুলো ধাপে ধাপে দেখিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করবো।

(evisa.rop.gov.om) ওমান ই ভিসা চেক

সবার শুরুতে আমি আপনাকে এমন একটি ওয়েবসাইট এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিবো। যে ওয়েবসাইট থেকে কোনো ঝামেলা ছাড়াই ভিসা চেক করা যায়। তবে যখন আপনি এই ওয়েবসাইট থেকে আপনার ওমান ই ভিসা চেক করবেন। তখন আপনাকে নিচে দেখানো পদ্ধতি গুলো ফলো করতে হবে। যেমন, 

ওমান ই ভিসা চেক করার উপায় অনলাইন

  1. সবার প্রথমে আপনাকে (https://evisa.rop.gov.om/en/track-your-application) ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। 
  2. তারপর আপনি উপরের পিকচারের মতো একটি পেজ দেখতে পারবেন। 
  3. এখন সবার শুরুতে আপনাকে ”Visa Application Number” প্রদান করতে হবে। 
  4. তার ঠিক নিচে “Travel Document Number” দিতে হবে। 
  5. ”Document’s Nationality” এর মধ্যে আপনার জাতীয়তা সিলেক্ট করুন। 
  6. সবশেষে আপনাকে একটি “Captcha” পূরন করতে হবে। 
See also  ডিজিটাল মার্কেটিং A to Z (বাংলা টিউটোরিয়াল)

তো যখন আপনি উপরে দেখানো নিয়ম গুলো ফলো করবেন। তারপর আপনাকে “Search” বাটন এর মধ্যে ক্লিক করতে হবে। আর উক্ত বাটনে ক্লিক করার সাথে সাথে আপনি আপনার ভিসার তথ্য গুলো দেখতে পারবেন।

(www.rop.gov.om) ওমান ভিসা চেক

যদি আপনি ওমান ই ভিসা চেক করতে চান। তাহলে আপনাকে উপরে দেখানো নিয়ম ফলো করতে হবে। কিন্তুু আপনি যদি সাধারন ওমান ভিসা অনলাইন থেকে চেক করতে চান। তাহলে আপনাকে এবারের নিয়ম গুলো ফলো করতে হবে। যেমন, 
ওমান ই ভিসা চেক করার উপায় অনলাইন
  1. প্রথমে আপনাকে এই (https://VisaAppStatus/english/) ওয়েবসাইট এর মধ্যে প্রবেশ করতে হবে। 
  2. তারপর আপনি উপরের পিকচারের মতো একটি সাইট দেখতে পারবেন।
  3. এবার আপনি আপনার “Web Application Number” টি প্রবেশ করুন। 
  4. তার ঠিক নিচের অপশনে “Passport Number” টি সঠিক ভাবে দিন। 
  5. এখন আপনাকে “Select Passport Country” সিলেক্ট করে দিতে হবে। 
  6. তারপর একটি ক্যাপচা কোড পূরন করতে হবে। 
  7. সবশেষে আপনাকে “Submit” বাটনে ক্লিক করতে হবে। 
মূলত আপনি যদি ওমান ভিসা চেক করতে চান। তাহলে আপনাকে যেসব নিয়ম মেনে কাজ করতে হবে। সেই নিয়ম গুলো উপরে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে এই নিয়ম ফলো করতে যদি আপনার ভিসা চেক করতে কোনো সমস্যা হয়। তাহলে আপনি আপনার সমস্যাটি নিচে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

ওমান যেতে কত টাকা লাগে?

কোনো একজন ব্যক্তির ওমান যাওয়ার জন্য মোট কত টাকা লাগবে। সেটা সম্পূর্ণ ভাবে নির্ভর করবে সেই ব্যক্তি কোন ভিসায় ওমান যেতে চায় তার উপর। কেননা, যখন কোনো একজন ব্যক্তি ওমানে ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় যাবে। তখন সেই ব্যক্তির ০৪ লাখ টাকা থেকে ০৫ লাখ টাকা খরচ করার প্রয়োজন হবে। 
আবার কোনো শিক্ষার্থী যদি স্টুডেন্ট ভিসায় ওমান যেতে চায়। তাহলে তার ওমান যাওয়ার জন্য প্রায় ৫০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকা খরচ করতে হবে। 
কিন্তুু যখন আপনি কোনো ধরনের বেসরকারি এজেন্সি কিংবা দালালের মাধ্যমে ওমান ভিসার জন্য যোগাযোগ করবেন। তখন আপনার স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি টাকা খরচ করতে হবে। তাই এই ধরনের দালাল কিংবা বেসরকারি এজেন্সিদের থেকে দুরে থাকার চেষ্টা করবেন। 

ওমান যেতে কত বয়স লাগে?

যখন আপনি পড়ালেখা কিংবা ভ্রমন করার জন্য ওমান যাবেন। তখন আপনার জন্য কোনো ধরনের বয়সের সীমাবদ্ধতা থাকবে না। কিন্তুু যদি আপনি ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় ওমান যেতে চান। তাহলে আপনার জন্য বয়সের সীমাবদ্ধতা থাকবে। 
কেননা, এখন যারা ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় ওমান যাবে। তাদের সর্বনিন্ম বয়স ২০ বছর হতে হবে। যদিওবা আগের দিন গুলোতে ওমান যাওয়ার সর্বনিন্ম বয়স ছিলো ১৮ বছর। তবে ওমান সরকার এই নিয়মের মধ্যে অনেকটা পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। 
এছাড়াও সর্বোচ্চ বয়সের ক্ষেত্রেও ওমান সরকার নির্দিষ্ট সীমাবদ্ধতা প্রদান করেছে। আর সেই নির্দেশনা অনুযায়ী কোনো একজন ব্যক্তির সর্বোচ্চ ৪৫ বছর পর্যন্ত ওমানে ওয়ার্ক পারমিটে যেতে পারবে। তাই যদি আপনার বয়স ৪৫ বছর এর বেশি হয়। তাহলে আপনি ওমানে ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় যেতে পারবেন না।

স্টুডেন্ট ভিসায় ওমান যেতে কি কি লাগে?

বর্তমান সময়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ওমানে পড়াশোনা করতে যায়। আর আপনিও যদি তাদের মধ্যে একজন হয়ে থাকেন। তাহলে আপনাকে সঠিক ভাবে ওমান স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে। 
আর যখন আপনি ওমান স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করবেন। তখন আপনাকে যেসব ডকুমেন্টস প্রদান করতে হবে। সেই ডকুমেন্টস গুলো তালিকা নিচে প্রদান করা হলো। যেমন, 
  1. ০৬ মাস মেয়াদী একটি বৈধ পাসপোর্ট থাকতে হবে। 
  2. স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদনপত্র। 
  3. আর্থিক সচ্ছলতার প্রমান বা ব্যাংক ব্যালেন্স।
  4. ২ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি। 
  5. ওমান শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভর্তির অফার লেটার। 
  6. শিক্ষার্থীর মেডিকেল সার্টিফিকেট। 
See also  অনলাইন ব্যবসা কি? | অনলাইন ব্যবসার আইডিয়া
বলে রাখা ভালো যে, আপনি ওমান স্টুডেন্ট ভিসার আবেদন করার সময় যেসব ডকুমেন্টস দিবেন। সেগুলো অবশ্যই সত্যায়িত হতে হবে। তাই আপনি আবেদন করার আগে সেই ডকুমেন্টস গুলো সত্যায়িত করে নিবেন। 

ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় ওমান যেতে কি কি লাগে?

এমন অনেক মানুষ আছেন, যারা মূলত ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় ওমান যেতে চায়। আর যখন আপনি কাজ করার জন্য ওয়ার্ক পারমিট এর আবেদন করবেন। তখন আপনাকে যেসব প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস প্রদান করতে হবে। সেই ডকুমেন্টস এর তালিকা নিচে প্রদান করা হলো। যেমন, 
  1. একটি বৈধ পাসপোর্ট যার মেয়াদ ০৬ মাস হতে হবে। 
  2. আবেদকারী ব্যক্তির জাতীয় পরিচয়পত্র এর কপি। 
  3. সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের ছবি। 
  4. পিতা ও মাতার এনআইডি কার্ডের কপি। 
  5. পাসপোর্ট এর কপি। 
  6. নির্দিষ্ট কাজের দক্ষতার প্রমান। 
  7. শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট (যদি প্রয়োজন হয়)।
  8. আবেদনকারী ব্যক্তির মেডিকেল রিপোর্ট।
যারা ওমান ওয়ার্ক পারমিট ভিসার জন্য আবেদন করতে চান। তাদের প্রাথমিক ভাবে যেসব ডকুমেন্টস এর দরকার হবে। সেই ডকুমেন্টস গুলো উপরের তালিকায় উল্লেখ করা হয়েছে। তবে যদি আপনার আরো কোনো ডকুমেন্টস এর দরকার হয়। তাহলে সেটি আপনাকে কর্তৃপক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হবে।

ওমানে কোন কাজের চাহিদা বেশি?

কোনো একটি দেশের অবস্থানের উপর ভিত্তি করে ভিন্ন ভিন্ন কাজের চাহিদা থাকে। তবে বর্তমান সময়ে ওমানে যেসব কাজের অধিক চাহিদা আছে। সেই কাজ গুলোর তালিকা নিচে উল্লেখ করা হলো। যেমন, 
  1. কার্পেন্টার এর কাজ,
  2. ম্যাসন এর কাজ,
  3. ইলেকট্রিশিয়ান এর কাজ,
  4. প্লাম্বার এর কাজ,
  5. ইঞ্জিনিয়ার এর কাজ,
  6. হোটেল বা রেস্টুরেন্ট এর কাজ,
  7. ট্রান্সপোর্ট কাজ,
  8. ড্রাইভারের কাজ,
  9. ফিশার প্যাকেজিং এর কাজ,
যদি আপনি ওমান ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় যেতে চান। তাহলে উপরের যেকোনো কাজে নিজের দক্ষতা অর্জন করার চেষ্টা করবেন। কেননা, দক্ষতা থাকলে ওমানে চাকরি করে ভালো বেতন সুবিধা পাওয়া যায়।

আপনার জন্য আমাদের শেষকথা

কিভাবে অনলাইনে ওমান ভিসা চেক করা যাবে আজকে সেই পদ্ধতি গুলো দেখিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে আজকে দেখানো পদ্ধতি গুলো ফলো করতে যদি আপনার কোনো সমস্যা হয়। তাহলে নিচে আপনার সমস্যাটি কমেন্ট করে জানাবেন। 
আর এতক্ষন ধরে আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। আপনার অজানা বিষয় গুলোকে সহজ ভাষায় জানতে আমাদের সাথে থাকবেন। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *