বুলগেরিয়া কাজের ভিসা আপডেট | ভিসা খরচ, বেতন

আমরা সবাই জানি যে, বুলগেরিয়া হলো সেনজেন দেশ গুলোর মধ্যে একটি। এছাড়াও বুলগেরিয়া হলো ইউরোপ মহাদেশের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত একটি দেশ। আর যদি আপনি বুলগেরিয়া কাজের ভিসায় যেতে পারেন। তাহলে আপনি সেখানে অনেক উচ্চ বেতনের সুবিধা নিতে পারবেন।

তবে তার আগে আপনাকে বুলগেরিয়া কাজের ভিসা আপডেট তথ্য গুলো সম্পর্কে জানতে হবে। আর এখন আপনি আপনার সাথে বুলগেরিয়া কাজের ভিসার সকল তথ্য গুলো শেয়ার করবো।

বুলগেরিয়া কাজের ভিসা আপডেট | ভিসা খরচ, বেতন

বুলগেরিয়া কাজের ভিসা আপডেট

Bulgaria Work Visa Update: বর্তমান সময়ে আমাদের বাংলাদেশ এর মধ্যে বুলগেরিয়ার কোনো দুতাবাস নেই। যার কারণে আপনাকে ভারতের দিল্লি থেকে বুলগেরিয়া কাজের ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে।

আর বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ থেকে বুলগেরিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পাওয়া মোটেও সহজ কাজ নয়। তবে যদি আপনার বুলগেরিয়া থেকে কাজ করার অফার লেটার আসে। সেক্ষেত্রে আপনি খুব সহজে বুলগেরিয়া কাজের ভিসায় যেতে পারবেন।

অন্যথায় আপনাকে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস যুক্ত করে কাজের ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে। আর এই আবেদন করার জন্য আপনার যেসব ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হবে। সেই সাথে বুলগেরিয়া ওয়ার্ক পারমিট আবেদন করার প্রসেস গুলো কি কি। সে গুলো নিয়ে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

বুলগেরিয়ায় কত ধরনের ভিসা পাওয়া যায়?

বর্তমান সময়ে বুলগেরিয়া থেকে যত প্রকারের ভিসা প্রদান করা হয়। উক্ত ভিসা গুলোর বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী  মোট ০৩ টি ভাগে ভাগ করা হয়ে থাকে। যেমন,
  1. Type A visa: এই ধরনের ভিসা এয়ারপোর্ট ট্রানজিট এর জন্য প্রযোজ্য।
  2. Type C visa: খুব কম সময় স্থায়ী থাকার জন্য এই ভিসা প্রযোজ্য।
  3. Type D visa: দীর্ঘ সময় স্থায়ী থাকার জন্য এই ভিসা প্রযোজ্য।
See also  বাংলাদেশ থেকে পর্তুগাল যাওয়ার সহজ নিয়ম
উপরের তালিকায় আপনি বুলগেরিয়া ভিসার বেশ কিছু ধরন দেখতে পারছেন। মূলত আপনি বুলগেরিয়া তে যেকোনো ভিসার জন্য আবেদন করুন। আপনার ভিসার ধরন উপরের যেকোনো একটির আওতায় থাকবে।

কাজের ভিসায় বুলগেরিয়া যেতে কি কি লাগবে?

যদি আপনি আমাদের বাংলাদেশ থেকে কাজের ভিসায় বুলগেরিয়া যেতে চান। তাহলে আপনার ক্ষেত্রে ওয়ার্ক পারমিট আবেদন করার সময় বেশ কিছু ডকুমেন্টস প্রদান করতে হবে। আর উক্ত ডকুমেন্টস গুলো নিচের তালিকায় শেয়ার করা হলো। যেমন,
  1. আবেদনকারীর পাসপোর্ট সাইজের ছবি,
  2. একটি বৈধ পাসপোর্ট এর কপি,
  3. ওয়ার্ক পারমিট পাওয়ার জন্য একটি আবেদনপত্র,
  4. চাকরির চুক্তিপত্র এর কপি,
  5. প্রার্থীর নিয়াগকর্তার নিকট থেকে প্রসংশাপত্র,
  6. আবেদনকারীর শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট কপি,
  7. একটি পূর্নাঙ্গ ওয়ার্ক পারমিট এর আবেদন ফরম,
মূলত যখন আপনি বুলগেরিয়া কাজের ভিসার জন্য আবেদন করবেন। তখন আপনার নিকট উপরোক্ত ডকুমেন্টস গুলো থাকতে হবে। কিন্তুু যদি আপনি দীর্ঘ সময় বুলগেরিয়াতে কাজের ভিসায় স্থায়ী থাকতে চান। তাহলে আপনার আরো কিছু ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হবে। যেমন,
  1. আপনার পাসপোর্ট এর প্রথম পৃষ্ঠার কপি,
  2. পাসপোর্ট সাইজের রঙ্গিন ছবি,
  3. পুলিশ ক্লিয়ারেন্স,
  4. বুলগেরিয়াতে আবাসন এর প্রমানপত্র,
  5. আপনার আর্থিক সচ্ছলতার প্রমান,
  6. মেডিকেল ইন্স্যুরেন্স,
আপনারা যারা বুলগেরিয়া তে দীর্ঘ সময়ের জন্য কাজের ভিসা পেতে চান। তাদের ক্ষেত্রে উপরের এই ডকুমেন্টস গুলো প্রদান করতে হবে।

বাংলাদেশ থেকে বুলগেরিয়া ভিসার আবেদন করার উপায়

আলোচনার শুরুতে আমি আপনাকে বলেছি যে, আমাদের দেশের মধ্যে বুলগেরিয়ার কোনো দূতাবাস নেই। অপরদিকে আপনি বাংলাদেশ থেকে বুলগেরিয়া ভিসার জন্য সরকারিভাবে অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন না।
আর সে কারণে আপনারা যারা বাংলাদেশ থেকে বুলগেরিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসার জন্য আবেদন করবেন। তাদের নিচে দেখানো পদ্ধতি গুলো ফলো করতে হবে। যেমন,
  1. প্রথমত আপনাকে সকল ডকুমেন্টস সংগ্রহ করতে হবে।
  2. তারপর আপনাকে সরাসরি ভারতের নিউ দিল্লি যেতে হবে।
  3. সেখানে থাকা বুলগেরিয়া দুতাবাসের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।
  4. এরপর আপনাকে দুতাবাস থেকে আবেদন করতে হবে।
See also  দুবাই সুপার মার্কেট ভিসা আপডেট
তবে যখন দুতাবাস থেকে আবেদন করার সময় আপনাকে কি কি করতে হবে। সেই নিয়ম গুলো আপনি তাদের কাছ থেকে জেনে নিতে পারবেন। এছাড়াও আপনাকে মোট কত টাকা আবেদন ফি প্রদান করতে হবে। সেটিও আপনি বুলগেরিয়া দুতাবাস থেকে জানতে পারবেন।
আর আপনার সুবিধার জন্য ভারতের দিল্লির কোথায় বুলগেরিয়া দুতাবাস আছে। সেই ঠিকানা টি নিচে প্রদান করা হলো। যেমন,
16/17 চন্দ্রগুপ্ত মার্গ,চাণক্যপুরী,
নিউ দিল্লি-110021, ভারত।
ফোন নাম্বারঃ
  1. +911 1 2611 5550 (সাধারণ),
  2. +911 1 2611 5549 (কনস্যুলার),
  3. +911 1 2412 1054 (ডাইরেক্ট কনস্যুলার),
  4. +919 9 1099 9498 (জরুরী হটলাইন অফ আউট)।
ফ্যাক্স করতে চাইলেঃ
  1. +911 1 2687 6190
ইমেইলে যোগাযোগ করতে চাইলেঃ
  1. embassy.delhi@mfa.bg, bgemdelhi@yahoo.com (সাধারণ),
  2. consular.delhi@mfa.bg (কনস্যুলার)।
দুতাবাস ওয়েবসাইটঃ
  1. www.mfa.bg/embassies/india
অফিসের সময়সীমাঃ
  1. সোমবার থেকে শুক্রবার (9:00 AM থেকে 1:00 PM), এবং (2:00 PM থেকে 6:00 PM)
কনস্যুলার এর সময়সীমাঃ
  1. সোমবার, বুধবার এবং বৃহস্পতিবার (9:30 AM থেকে 12:30 PM).
ভিসা স্ট্যাম্পিং করার সময়সীমাঃ
  1. সোমবার থেকে শুক্রবার (12:00 PM থেকে 12:30 PM)।
তো আপনাকে আমাদের বাংলাদেশ থেকে ভারতের দিল্লি এই ঠিকায় যেতে হবে। তারপর আপনাকে ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে।

বিশেষে বার্তাঃ বর্তমান সময়ে দিল্লির যেই স্থানে বুলগেরিয়া দুতাবাস আছে, সেই স্থানের ঠিকানা উপরে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে পরবর্তী সময়ে এই ঠিকানা পরিবর্তন হতে পারে।

বুলগেরিয়া কাজের বেতন কত?

কোনো একটি দেশে আপনার কাজের বেতন কত হবে, তা আপনার কাজের ধরনের উপর নির্ভর করবেন। তবে যদি আপনি আমাদের বাংলাদেশ থেকে বুলগেরিয়াতে কাজ করতে পারেন। তাহলে যেকোনো কাজের জন্য আপনার সর্বনিন্ম বেতন হবে প্রায় 650BGN.
যা আমাদের বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৩৯ হাজার ১৩৫ টাকার সমান। তবে কাজের বেতনের পাশাপাশি আপনি চাকরির ক্ষেত্রে আপনি বিভিন্ন দিক থেকে সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। এছাড়াও আপনার কাজের উপর ভিত্তি করে উক্ত বেতনের পরিমান আরো বেশি হবে।

বুলগেরিয়া যেতে কত টাকা খরচ হবে?

স্বাভাবিক ভাবে বুলগেরিয়া যেতে আপনার ০৬ থেকে ০৭ লাখ টাকা খরচ করার প্রয়োজন পড়বে। তবে এজেন্সির মাধ্যমে বুলগেরিয়া যেতে চাইলে আপনার আরো বেশি টাকা খরচ করতে হবে।
কেননা, যেহুতু আমাদের বাংলাদেশে বুলগেরিয়া দুতাবাস নেই। যার কারণে অধিকাংশ সময় আমাদের বিভিন্ন ধরনের এজেন্সির সহায়তা নিতে হবে। কিন্তুু এই ধরনের এজেন্সির মাধ্যমে ভিসার যোগাযোগ করার সময় অবশ্যই সতর্ক থাকবেন।

বুলগেরিয়া গার্মেন্টস ভিসা আপডেট

বিভিন্ন সময় বুলগেরিয়া গার্মেন্টস ভিসার নিয়োগ প্রকাশ করা হয়। আর যদি এমন কোনো নিয়োগ প্রকাশ করা হয়। তখন আপনাকে সেই নিয়োগে আবেদন করতে হবে। কিন্তুু চলমান সময়ে বুলগেরিয়া থেকে কোনো ধরনের গার্মেন্টেস ভিসার নিয়োগ প্রকাশ করা হয়নি।

আপনার জন্য আমাদের কিছুকথা

চলমান সময়ে বুলগেরিয়া কাজের ভিসা পাওয়া অনেক কঠিন হয়ে পড়েছে। কিন্তুু তারপরও যারা ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় বুলগেরিয়া যেতে চান। তাদের কি কি লাগবে, কিভাবে আবেদন করবে সেই বিষয় গুলো নিয়ে আজকে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।
তবে এরপরও যদি আপনার কিছু জানার থাকে, তাহলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন। ধন্যবাদ, এতক্ষন ধরে আমাদের সাথে থাকার জন্য। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *