পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে কত টাকা লাগে?

বিভিন্ন সময় আমাদের পুলিশ ভেরিফিকেশন করার দরকার হয়। আর সেই সময় আমরা জানতে চাই যে, পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে কত টাকা লাগে। আর আপনিও যদি এই বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চান।

তাহলে আমি আপনাকে বলবো যে, বর্তমান সময়ে পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে মোট ৫০০ টাকা খরচ করতে হয়।

পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে কত টাকা লাগে?

 

আর উক্ত পুলিশ ভেরিফিকেশন এর টাকা গুলো আপনি মোট ০২ টি পদ্ধতি তে পরিশোধ করতে পারবেন। সেগুলো হলো, 

 

  1. সোনালী ব্যাংক থেকে / বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে,

  2. আর অনলাইন ক্রেডিট / ডেবিট কার্ড এর মাধ্যমে,

 

কিন্তুু আপনি যদি ব্যাংক এর মাধ্যমে পুলিশ ভেরিফিকেশন এর টাকা পরিশোধ করতে চান। তাহলে আপনাকে (১-৭৩০১-০০০১-২৬৮১) এই কোড নম্বরে টাকা পাঠিয়ে দিতে হবে। 

পুলিশ ভেরিফিকেশন কি? 

সহজ কথায় বলতে গেলে, পুলিশ ভেরিফিকেশন হলো বিশেষ এক ধরনের প্রক্রিয়া। যার মাধ্যমে নির্দিষ্ট একজন ব্যক্তির যাবতীয় তথ্য গুলো সত্যতা যাচাই করা সম্ভব। যেমন, আপনি যদি বিদেশ যেতে চান, তাহলে আপনাকে অবশ্যই পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করতে হবে। আর পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করতে আপনাকে নির্দিষ্ট ডকুমেন্টস সাবমিট করতে হবে। 

 

তো আপনার সাবমিট করা এই ডকুমেন্টস গুলো সত্য কিনা। সেটি মূলত পুলিশ ভেরিফিকেশন এর মাধ্যমে যাচাই করা সম্ভব। এছাড়াও আরো বিভিন্ন ধরনের দাপ্তরিক কাজের ক্ষেত্রেও পুলিশ ভেরিফিকেশ করা হয়ে থাকে। 

See also  সাংবিধানিক আইন কাকে বলে? বাংলাদেশ সংবিধান

 

তবে পুলিশ ভেরিফিকেশন যে শুধুমাত্র আপনার ডকুমেন্টস যাচাই করবে, বিষয়টা এমন নয়। বরং একজন নির্দিষ্ট ব্যক্তির অতীত ইতিহাস যাচাই করাও হলো পুলিশ ভেরিফিকেশন এর অন্যতম অংশ। আশা করি, পুলিশ ভেরিফিকেশন কি সে সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা পেয়ে গেছেন। 

পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে কত টাকা লাগে?

আপনি যদি বর্তমান সময়ে পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে যান। তাহলে অবশ্যই আপনার খরচ বাবদ ৫০০/- দিতে হবে। কিন্তুু অনেক সময় আমাদের এর থেকেও আরো বেশি টাকা খরচ করার দরকার হয়। তবে এই খরচের পরিমান খুব বেশি হবেনা। 

কেন আপনার পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে হবে?

সবার শুরুতে আমি আপনাকে একটা কথা বলেছিলাম। আর সেই কথাটি হলো, বিভিন্ন প্রয়োজনে আমাদের পুলিশ ভেরিফিকেশন করার দরকার হয়। তবে স্বাভাবিক ভাবে যে সকল কারণে আমাদের পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে হয়। সেই কারন গুলো নিচে উল্লেখ করা হলো। যেমন, 

 

  1. আপনি যখন কোনো চাকরিতে জয়েন করবেন। 

  2. বিদেশ যাওয়ার আগে পাসপোর্ট করার সময়। 

  3. (ড্রাইভিং/অস্ত্রের) লাইসেন্স করার সময়। 

 

মূলত যে সকল কারণে আমাদের পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে হয়। সেই কারণ গুলো উপরে উল্লেখ করা হয়েছে। আর যখন আপনি উক্ত কাজ গুলো করতে যাবেন। তখন আপনাকে অবশ্যই পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে হবে। 

পুলিশ ভেরিফিকেশন এর জন্য কি কি কাজগপত্র এর দরকার হয়?

যখন আপনি আপনার প্রয়োজনে পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে যাবেন। তখন আপনাকে বেশ কিছু কাগজ পত্র জমা দিতে হবে। আর বর্তমান সময়ে আপনাকে যেসকল কাগজ পত্র দিতে হবে। সে গুলোর তালিকা নিচে দেওয়া হলো। যেমন, 

 

  1. অনলাইনে পুলিশ ভেরিফিকেশন আবেদন এর কপি। 

  2. আবেদন ফি এর ট্রেজারি চালান।

  3. আপনার স্থায়ী ঠিকানার যেকোনো বিলপত্র। যেমন, কারেন্ট বিল / পানি বিল / গ্যাস বিল ইত্যাদি। 

  4. পাসপোর্ট এর ক্ষেত্রে ১ম শ্রেনীর গেজেটেড অফিসারের নিকট হতে সত্যায়িত পাসপোর্ট স্ক্যান কপি। 

 

তো আপনি যদি আপনার প্রয়োজনে বর্তমানে পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে চান। তাহলে আপনার আসলে যে সকল কাগজ পত্র জমা দিতে হবে। সেগুলোর তালিকা উপরে প্রদান করা হলো। আর আপনি অবশ্যই এই ডকুমেন্টস গুলো আপনার সাথে রাখবেন। 

See also  Ielts ছাড়া কোন কোন দেশে যাওয়া যায়?

পুলিশ ক্লিয়ারেন্স আবেদন করার নিয়মাবলী

যদি আপনি পুলিশ ক্লিয়ারেন্স পেতে চান, তাহলে আপনাকে অবশ্যই অনলাইনে আবেদন করতে হবে। আর এই আবেদন করার সময় আপনাকে আসলে কি কি নিয়ম ফলো করতে হবে। সেই নিয়ম গুলো নিচে ধাপে ধাপে দেখিয়ে দেওয়া হলো। যেমন, 

পুলিশ ক্লিয়ারেন্স আবেদন করার নিয়মাবলী

 

  1. সবার প্রথমে আপনাকে এখানে ক্লিক করতে হবে। তারপর একটি একাউন্ট তৈরি করে নিতে হবে। 

  2. তারপর আপনি আপনার ব্যক্তিগত তথ্য প্রদান করবেন। যেমন,  Name, Email, Mobile No, NID No ইত্যাদি।

  3. এরপর আপনার মোবাইল নম্বর এবং ইমেইল এড্রেস ভেরিফাই করতে হবে। 

  4. মোবাইল নম্বর ভেরিফাই করার জন্য আপনাকে মেসেজ অপশনে গিয়ে “26969” নম্বরে মেসেজ পাঠাতে হবে। 

  5. এবার আপনার যাবতীয় তথ্য গুলো পুলিশের ডাটাবেজে জমা করতে হবে। 

  6. এবং আপনার যে ঠিকানা রয়েছে সেগুলো সঠিক ভাবে প্রদান করতে হবে। 

  7. তারপর আপনার যে সকল ডকুমেন্টস রয়েছে, সেগুলো স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে। 

  8. সবশেষে আপনাকে পেমেন্টে বা পুলিশ ভেরিফিকেশন ফি প্রদান করতে হবে। 

 

মূলত আপনি যখন পুলিশ ক্লিয়ারেন্স এর জন্য অনলাইন আবেদন করবেন। তখন আপনাকে যে সকল নিয়ম মানতে হবে। সেগুলো উপরের আলোচনায় ‍উল্লেখ করা হয়েছে। 

পুলিশ ক্লিয়ারেন্স যাচাই করা যাবে কি? 

আপনি যখন পুলিশ ক্লিয়ারেন্স এর জন্য আবেদন করবেন। তারপর আপনার সেই আবেদন বর্তমানে কোন ধাপে আছে। সেটি আপনি নিজের ঘরে বসে যাচাই করতে পারবেন। আর আপনি যদি পুলিশ ক্লিয়ারেন্স যাচাই করতে চান। তাহলে সবার প্রথমে আপনাকে আপনার একাউন্ট এর মধ্যে প্রবেশ করতে হবে। 

 

আর আপনি যখন আপনার একাউন্টে লগ ইন করবেন। তারপর বর্তমানে আপনার আবেদন টি কোন ধাপে রয়েছে। তা আপনি সেখান থেকে দেখতে পারবেন। 

Q:আমি কিভাবে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স পাবো?

A: আপনি মোট ০২ টি পদ্ধতি তে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স পাবেন। যেমন, কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে এবং সরাসরি পুলিশ সুপার কিংবা পুলিশ কমিশনার কার্যালয় থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন। 

See also  রোমানিয়া স্টুডেন্ট ভিসা খরচ ও যোগ্যতা

Q: কখন পুলিশ ভেরিফিকেশন ব্যার্থ হয়?

A: এমন অনেক কারন আছে, যেগুলোর জন্য আপনার পুলিশ ভেরিফিকেশন এর কার্যক্রম ব্যার্থ হতে পারে। আর সেগুলো হলো, 

 

  1. আবেদন এর সময় সনদপত্র না দেওয়া। 

  2. আপনার ঠিকানার মিল না থাকা। 

  3. প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস গুলো সত্যায়িত না হওয়া। 

  4. আপলোড করা কাগজ ঝাপসা বা অষ্পষ্ট হওয়া। 

  5. আপনার তথ্যের মধ্যে ভুল থাকা। 

  6. আবেদনকারী ব্যক্তির নামে মামলা থাকা। 

 

মূলত এই কারন গুলোর সাথে যদি আপনার মিল থাকে। তাহলে কিন্তুু আপনার ক্ষেত্রে পুলিশ ভেরিফিকেশন এর কার্যক্রম ব্যার্থ হবে। যার ফলে আপনি পুলিশ ভেরিফিকেশন সনদ পাবেন না।  

Q: পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে কতদিন সময় লাগে?

A: পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে মোট কতদিন সময় লাগবে। সেটি আসলে নির্দিষ্ট করে বলা সম্ভব নয়। তবে স্বাভাবিক ভাবে ০৩ দিন থেকে শুরু করে ১৫ দিন কিংবা তার থেকেও বেশি সময় লাগতে পারে। 

Q: যদি আবেদন ব্যার্থ হয়, তাহলে কি দ্বিতীয়বার আবেদন করতে পুলিশ ভেরিফিকেশন ফি দিতে হবে?

A: কোনো কারণে যদি আপনার আবেদন ব্যার্থ হয়। এবং আপনি যদি দ্বিতীয়বার পুনরায় আবেদন করতে চান। সেক্ষেত্রে আপনাকে আর কোনো আবেদন ফি দিতে হবেনা। কিন্তুু যদি আপনার আবেদন সম্পূর্ণ ভাবে ক্লোজড হয়ে যায়। তাহলে আপনাকে পুনরায় টাকা দিয়ে আবেদন করতে হবে। 

Q: যে মোবাইল নম্বর দিয়ে রেজিষ্ট্রেশন করেছি সেই সিম হারিয়ে ফেললে করনীয় কি?

A:যদি আবেদন করার পর আপনার সেই সিম হারিয়ে যায়। তাহলে আপনাকে সেই সিমটি পুনরায় রিপ্লেস করতে হবে। কিন্তুু যদি আপনার সেই সিম রিপ্লেস করা সম্ভব না হয়। তাহলে আপনাকে পুলিশ ভেরিফিকেশন এর হেল্পলাইনে যোগাযোগ করতে হবে। 

Q: পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে আমাকে থানায় যেতে হবে কি?

A: না, স্বাভাবিক ভাবে পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে থানায় যেতে হয়না। তবে যদি কোনো বিশেষ প্রয়োজন হয়। তাহলে আপনাকে থানায় যেতে হবে। 

আপনার জন্য আমাদের কিছুকথা 

প্রিয় পাঠক, পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে কত টাকা লাগে? – যারা এই বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। আশা করি, তারা তাদের প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানতে পেরেছেন। এছাড়াও পুলিশ ভেরিফিকেশন সম্পর্কে এমন কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য শেয়ার করেছি। যেগুলো আপনার জেনে নেওয়াটা অতি জরুরী। 

 

আর আমরা প্রতিনিয়ত এই ধরনের অজানা বিষয় গুলো নিয়ে আর্টিকেল পাবলিশ করি। যদি আপনি সেই তথ্য গুলো সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে আমাদের সাথে থাকবেন। ধন্যবাদ, এতক্ষন ধরে আমাদের সাথে থাকার জন্য। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *